বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৮ ২০২৪ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ - বসন্তকাল | ১৭ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

জাতীয় সাইবার নিরাপত্তা: সিসিএ ফাউন্ডেশনের সম্মিলনে গিয়ে যা বললেন অংশীজনরা

দেশের জাতীয় স্বার্থে সাইবার নিরাপত্তায় সবাই সম্মিলতভাবে কাজ করার কোনো বিকল্প নেই বলে জানিয়েছেন সাইবার নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট অংশীজনরা। তারা বলেন, সাইবার নিরাপত্তা শুধু একটি মাত্র খাত নয়, বরং এটি একটি ডেমেইন বা বিশাল কার্যক্ষেত্র। সরকারের একার পক্ষে সাইবার নিরাপত্তার শতভাগ নিশ্চিত করা বাস্তবসম্মত নয়। সরকারি-বেসরকারি সব অংশীজন মিলে নিজ নিজ জায়গা থেকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের মাধ্যমে জাতীয় সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

রাজধানীর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে এক ইফতার ও অংশীজনদের সম্মিলন অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন বক্তারা। সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণে কাজ করা স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ‘সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশন (সিক্যাফ)’ এই আয়োজন করে।

এই আয়োজনে শনিবার অংশ নিয়েছেন সিক্যাফের উপদেষ্টা সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ শেখ মো. মেহেদী হাসান ও কম্পিউটর সার্ভিস লিমিটেডের প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা আল ফারুক ইবনে নাজিম, ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সভাপতি ইমদাদুল হক, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির সিনিয়র অ্যাসিসটেন্ট ডিরেক্টর মো. জাহিদ হাসান চৌধুরী, সাইবার নিরাপত্তা সচেতনতা বিষয়ক জাতীয় কমিটির (এনসিসিএ) সদস্য ও সাবেক অডিটর জেনারেল মো. ইকবাল হোসেন, এনসিসিএর আরেক সদস্য ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক মো. সাইমুম রেজা তালুকদার, ডিনেটের নির্বাহী পরিচালক এম. শাহাদাত হোসেন, কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (কোইকা) প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর মো. ফজলে রাব্বি, সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা হেলভেটাস সুইস ইন্টারকোঅপারেশন, বাংলাদেশের ডোমেইন কো-অর্ডিনেটর (গভর্নেন্স অ্যান্ড রাইটস) শাহরিয়ার মান্নান, আন্তর্জাতিক সাইবার নিরাপত্তা সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সফোসের বাংলাদেশের আঞ্চলিক প্রধান আবুল হাসনাত মহসিন, পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আসলাম উদ্দিন, ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের (সিটিটিসি) অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার ইঞ্জিনিয়ার সাঈদ নাসিরুল্লাহ, সাইবার বুলিং নিয়ে কাজ করে আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার অর্জনকারী সাদাত রহমান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিক্যাফের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি কাজী মুস্তাফিজ।

সিক্যাফের সভাপতি বিশ্ব সাইবার রাজনীতিতে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান নিশ্চিত করার জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। বৈশ্বিক বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মের দেশীয় সংস্করণ তৈরির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সবাইকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে আরো ছিলেন আয়োজক সংগঠন সিক্যাফের সাধারণ সম্পাদক নুরুন আশরাফী, অর্থ সম্পাদক মমিনুল ইসলাম, কার্যনির্বাহী সদস্য (কর্মসূচি উন্নয়ন) খালেদা আক্তার, বেসরকারি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বিটলস সাইবার সিকিউরিটির হেড অব সিকিউরিটি অপারেশন শাহী মির্জা, ডিকোডস ল্যাবের প্রধান নির্বাহী আরিফ মঈনুদ্দীন, আহসানিয়া মিশন ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী, দৈনিক আমার কাগজ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ফজলুল হক ভূইয়া রানা, ডেইলি সিটিজেন টাইমসের সম্পাদক নাজমুল আহমদ তৌফিক, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক আবু সাঈদ খান, বাংলাদেশ এক্সপোর্ট ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও আমানা ফুড অ্যান্ড কনজুমার লিমিটেডের পরিচালক (আন্তর্জাতিক বিপনন ও পরিকল্পনা) আবদুল্লাহ আল মাহমুদ, ব্র্যাকের সিনিয়র স্পেশালিস্ট আবদুল্লাহ জোবায়ের, ব্লু পিল লিমিটেডের প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা (সিটিও) সমীরণ চক্রবর্তী, সামাজিক সংগঠন নাগরিক বিকাশ ও কল্যাণের (নাবিক) সভাপতি ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান প্রমুখ।