বুধবার, জুন ২৩ ২০২১ | ৯ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ - বর্ষাকাল | ১২ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

‘এক দেশ এক রেট’ ট্যারিফে স্বল্পমুল্যে বাড়ি বাড়ি ইন্টারনেট পৌছাতে চায় সরকার

সাইবারবার্তা ডেস্ক: গ্রাহক পর্যায়ে ‘এক দেশ এক রেট’ ব্রডব্যান্ড ট্যারিফ চালুর পর ব্যবসায় পর্যায়ে সর্বোচ্চ মূল্য বেধে দেবে সরকার। ইউনিয়নের পর বাড়ি বাড়ি ইন্টারনেট পৌঁছে দিতেই এই উদ্যোগ নিচ্ছে বিটিআরসি।

 

রবিবার বিটিআরসি সম্মেলন কক্ষে অংশীজনদের অংশগ্রহণে এই ট্যারিফ প্লান উদ্বোধন করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মেস্তাফা জব্বার। ট্যারিফ প্লান অনুযায়ী, দেশজুড়ে সকল গ্রাহককে সর্বনিম্ন ৫ এমবিপিএস ইন্টারনেট সংযোগ দিতে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা নিতে পারবেন সেবাদাতারা। অপরদিকে ১০ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট মূল্য ধরা হয়েছে ৮০০টাকা থেকে ১০০০ টাকা। আর ২০ এমবিপিএস সংযোগে সর্বনিম্ন ১১০০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা বেধে দেয়া হয়েছে।

 

প্রধান অতিথির বক্তেব্যে এই উদ্যোগকে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগে সমতা সৃষ্টির সূচনা মাত্র উল্লেখ করে মন্ত্রী জানিয়েছেন, ইন্টারনেট সেবার প্রতিটি স্তরের সর্বোচ্চ মূল্য কাঠামো নির্ধারণ করে দেয়া হবে।

 

অংশীজনদের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, আপনাদের সঙ্গে নিয়েই চূড়ান্তভাবে প্রত্যেকটি স্তরের জন্য যা যা করণীয় আছে সে বিষয়টি আমরা করবো। আমাদে লক্ষ্য বাড়ি বাড়ি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পৌঁছে দেয়।

 

জনগণের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষারর্থে বিটিআরসি এই অধিকার বাস্তবায়ন করছে বলে মন্তব্য করেন মোস্তাফা জব্বার।তিনি বলেন, আমি মনে করি এই ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট প্রত্যেক নাগরিকের জন্মগত ও সাংবিধানিক অধিকার। এই অধিকার রক্ষার মাধ্যসে সমতা সৃষ্টি করতে বিটিআরসি কাজ করছে।

 

বক্তব্যে একরেট বাস্তবায়নে অংশীদারদের নিজেদের মধ্যে সমন্বয়ের গুরুত্ব তুলে ধরে বিটিআরসিও সার্বক্ষণিক পর্যালোচনার মাধ্যমে বিদ্যমান সমস্যার সমধান করবে বলেও প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী। তিনি বলেন, বিটিআরসি যেসব কাজ করছে, আমি আশা করি, ভবিষ্যতে আপনার আরো সুফল ভোগ করবেন।

 

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ইন্টারনেট ব্যবসায়ীদের সকল সমস্যার সমাধানে নিজের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরেন বিটিআরিসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার। অনুষ্ঠানের শুরুতেই তথ্যচিত্রের মাধ্যমে এক দেশ এক রেট গঠনের যৌক্তিকতা ও প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন বিটিআরসি’র মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো: নাসিম পারভেজ।

 

এসময় তিনি জানান,  স্থানীয় পর্যায়ে আইএসপির মধ্যে সমন্বয়হীনতা দূর করে বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণ করার পাশাপাশি প্রান্তিক পর্যায়ের ব্রডব্যন্ড ইন্টারনেট গ্রাহকদের স্বার্থ রক্ষায় গুরুত্ব দিয়েছে বিটিআরসি।

 

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মোঃ আফজাল হোসেন এবং বিটিআরসি’র ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত কুমার মৈত্র বক্তব্য রাখেন। অংশীজনদের বক্তব্যে এনটিটিএন, আইআইজিসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর ট্যারিফ নির্দিষ্ট করার আহ্বান জানান আইএসপিএবি সভাপতি আমিনুল হাকিম।

 

তিনি তার বক্তব্যে কোয়ালিটি অব সার্ভিস মনিটরের জন্য বিটিআরসির মনিটরিং কার্যক্রম জোড়দার করারও আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে ফাইবার অ্যাট হোমের চেয়ারম্যান মইনুল হক সিদ্দিকি বিটিআরসির এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বাজার শৃঙ্খলার জন্য পরবর্তী উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান।

 

আইআইজি প্রতিনিধি আহমেদ জুনায়েদ তার বক্তব্যে জানান সরকারের এমন উদ্যোগে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বৃদ্ধি পাবে।অনুষ্ঠানে খুলনা, ময়মনসিংহ এবং চট্টগ্রাম থেকে তিনটি আইএসপি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

 

(সাইবারবার্তা.কম/আইআই/৬ জুন ২০২১)

শেয়ার করুন

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
আরও পড়ুন

নতুন প্রকাশ